বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৩:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
নোয়াখালীতে সাংবাদিক রফিকুল আনোয়ারের শোক সভা অনুষ্ঠিত কোম্পানীগঞ্জে দুই ইউপি সদস্যের ইয়াবা সেবনের ভিডিও ভাইরাল নোয়াখালীতে সড়কের পাশে মিলল ২০ কেজি গাঁজা বিশ্বের ২০০টি দেশের মধ্যে করোনা মোকাবিলায় আমরা পঞ্চম সফল দেশ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু শুধু হাত দিয়ে খোলা হয়নি : সিআইডি মোবাইল নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়ায় প্রাণ গেল গৃহবধূর সূবর্ণচর ভূমিহীনদের জন্য সাড়ে ৫০০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার: একরাম চৌধুরী কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার বিয়ের কথা বলে ডেকে নিয়ে কোম্পানীগঞ্জে কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ সবার জন্য পেনশন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

করোনা পরিস্থিতিতে সন্তানকে খাপ খাওয়াবেন যেভাবে

করোনার কারণে বেশিরভাগ মানুষই ঘরবন্দী হয়ে সময় কাটাচ্ছেন। এর প্রভাবে শিশুদের স্ক্লুও বন্ধ। অন্যদিকে আবার অনেক বাবা-মাকে বাড়িতে বসে কাজ করতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে প্যারেন্টিং বেশ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। এ সময়টা বাবা-মা কীভাবে মোকাবেলা করতে পারেন তা নিয়ে জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ কিছু পরামর্শ দিয়েছে। যেমন-
১. শিশুরা এর মধ্যে করোনার কথা জেনেছে। তাদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে হবে। গোপন করা বা নীরব থাকা যাবে না। তাদের সত্যিটা জানা জরুরি। তবে সে যতটা বুঝতে পারবে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে তার সঙ্গে ততটাই কথা বলুন। যদি বিষয়টি নিয়ে সে আতঙ্কগ্রস্ত থাকে তাহলে তার মনোভাব শেয়ারের সুযোগ দিন।
২. স্কুল বন্ধ থাকার এ সময় সন্তানদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো করতে পারেন। তাদের সঙ্গে মজা করুন। তাদেরকে সময় দিন। এতে শিশুরা নিজেদের সুরক্ষিত ও গুরুত্বপূর্ণ মনে করবে।
৩. আমরা প্রায়ই শিশুদের এটা করো না, ওটা করো না, ওটা করো না বলি। কিন্তু তাদের প্রশংসা করলে, ইতিবাচকভাবে আদেশ দিলে তাদের মন ভালো থাকবে। তারা ভালো কাজে উৎসাহী হবে।
৪. কোভিড-১৯ এর প্রভাবে সবারই জীবানযাত্রায় পরিবর্তন এসেছে। শিশুদের জন্য এটা আরও খারাপ হয়েছে। তাদেরকে পড়াশোনা, খেলাধূলা বা অন্য কাজের জন্য আলাদা রুটিন তৈরি করে দিন। ছবি আঁকতে দিন। ঘরের কাজে উৎসাহিত করুন।
৫. শিশুদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা শেখান। হাত ধোয়া, পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা, সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা শেখান।
৬. লকডাউনের কারণে অনেক শিশু, টিন এজার দিনের অনেকটা সময় অনলাইনে কাটাচ্ছে। তারা অনলাইনে কি দেখছে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। বাড়িতে কীভাবে ডিভাইস ফ্রি পরিবেশ তৈরি করা যায় সেই চেষ্টা করুন।
৭. লকডাউনের এই সময় সবারই মানসিক চাপ হয়। এ কারণে নিজের এবং শিশুদের মানসিক চাপ কমানোর চেষ্টা করুন। বেশি চাপ বোধ করলে কাজে বিরতি নিন। নিঃশ্বাসের ব্যায়াম করুন।
৮. পরিবারের মধ্যে যদি একাত্মতা থাকে, শিশুরা এ সময় নিজেদের নিরাপদ বোধ করবে। পরষ্পরের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব শান্তিপূর্ণ পারিবারিক পরিবেশ বজায় রাখবে। পারিবারিক পরিবেশ খারাপ হলে সেটা শিশুদের ওপরও প্রভাব ফেলে। তাই যতটা সম্ভব বাড়িতে শান্তির পরিবেশ বজায় রাখুন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
© All rights reserved © 2017 nktelevision
Design & Developed BY Shera Web