সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে কোম্পানীগঞ্জে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

নাছির উদ্দিন, কোম্পানীগঞ্জ, নোয়াখালী : বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন। ১৯৫৫ সালে আত্মপ্রকাশ করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা। তিনি বলেন, ১৯৫৫ সালে অসম্প্রদায়িক দল হিসেবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আত্মপ্রকাশ করে, কাকমারী সম্মেলনের মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতি নির্বাচিত করা হয় মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয় শামসুল হককে, সিনিয়র জয়েন্ট সেক্রেটারি করা হয় বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ব্রিটিশ বেনিয়াদের হাত থেকে যখন সাম্প্রদায়িক পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠিত হয় তখন বাঙালি বুকভরা আশা বেধে ছিল যে আমাদের অধিকার আমরা প্রতিষ্ঠিত করতে পারব, কিন্তু পশ্চিমা পাকিস্তানীরা বাঙ্গালীদের অধিকারে সবসময় হস্তক্ষেপ করে। পশ্চিমা পাকিস্তানিরা প্রথমে পূর্ব বাংলার মানুষের ভাষার অধিকার নিয়ে হস্তক্ষেপ করে তখন থেকে শুরু হয় ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের ৬ দফা, ৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭১ সালের ৭ ই মার্চ বঙ্গবন্ধু রেসকোর্স ময়দানে ভাষণ দিয়েছিল এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, সেই বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণার পর বাংলাদেশে দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করে। বঙ্গবন্ধুর পক্ষে তখন স্বাধীনতার ঘোষণা করেন মেজর জিয়াউর রহমান। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার বহুপূর্বে ১৯৪৮ সালের চৌঠা জানুয়ারি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশের প্রতিটি আন্দোলনে ছাত্রলীগের অগ্রণী ভূমিকা ছিল।

১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ স্বাধীনতা লাভ করে বাংলাদেশ, আর তখন থেকেই বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রকে নিয়ে ষড়যন্ত্র লিপ্ত হয় বিভিন্ন দেশ,
আমেরিকার সম্রাজ্যবাদ থেকে শুরু করে সবাই এ দেশকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়, কিন্তু বঙ্গবন্ধুর একক ক্ষমতা এবং সাহসী ভূমিকার কারণে কেউ বাংলাদেশকে নিয়ে তেমন কিছু করতে পারেনি।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সংগ্রাম থেকে শুরু করে দেশের অর্থনীতির উন্নতির সমৃদ্ধির সবকিছুতে একধাপ এগিয়ে আছে বাংলাদেশে আর এই এগিয়ে যাওয়ার পিছনে নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজগুলোকে আজ সমাপ্ত করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তারই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা।

বিশ্ব ব্যাংক যেদিন পদ্মা সেতুর কথা বলেছিল বাংলাদেশকে ঋন দেওয়া যাবেনা, সেদিন শেখ হাসিনা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিল আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করব, আজকে পদ্মা সেতু দৃশ্যমান, আজকে যেখানে নোয়াখালী থেকে ঢাকা যেতে সাত-আট ঘণ্টা সময় লাগত সেখানে এখন আমরা দুই তিন ঘণ্টায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে চলে আসতে পারি, এই অবদান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এই অবদান শেখ হাসিনার।

অপশক্তিদের উদ্দেশ্যে মেয়র মির্জা বলেন, সকলের জন্য দরজা খোলা আছে কেউ যদি রাজনীতি করতে চায় আমি সেখানে আহ্বায়ক কমিটি করে দিয়েছি তাদের সাথে যোগাযোগ করে তারা রাজনীতি করবে, তবে ২/৪ জনের বিষয়ে আমার কিছু কথা আছে, মিজানুর রহমান বাদল কে আমরা রেজুলেশনের মাধ্যমে বহিষ্কার করেছি, সে আর এখানে কোনো রাজনীতি করতে পারবে না এবং আমার ভাগিনা ওই রামপুরের কুলাঙ্গার রিমন কখনো দলে আসতে পারবেনা, ফখরুল ইসলাম রাহাদ যে একজন মাদক ব্যবসায়ী মাদকসম্রাট ও মাদক সম্রাটের বন্ধু সেও আর রাজনীতি করতে পারবে না।

খিজির হায়াত এবং নুরনবী চৌধুরী, রংমালার আব্দুল্লাহ এরা কখনো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কোনো কার্যক্রম করতে পারবে না।
বাকি যারা আছে তারা যদি রাজনীতি করতে হয় প্রথমে তাদেরকে ক্ষমা চাইতে হবে তারপর বিবেচনা করা যাবে তাদের জন্য কি পদ রাখা যায়।

কোম্পানীগঞ্জে চলছে অস্ত্রের রাজনীতি, অস্ত্রের রাজনীতির বিষয়ে মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা বলেন, প্রশাসনের প্রতি আমি দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি, অস্ত্র উদ্ধার করতে হবে অস্ত্র উদ্ধার না হলে এখানে সংঘাত লেগে থাকবে। আমার লোকদের কাছে যদি অস্ত্র থাকে বলেন আমি সেগুলো জমা দিয়ে দিব। অস্ত্র উদ্ধার করতে হবে আমরা চাই কোম্পানীগঞ্জের শান্তি।

বাদলকে আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, সে একজন ভূমিদস্যু তার কাছে একজন মুক্তিযোদ্ধার জায়গায়ও নিরাপদ নয়। উপজেলায় কোয়াটারের পেছন এক মুক্তিযোদ্ধার ৫ শতাংশ জায়গা ছিল সে জায়গাটিও জবর দখল করে বাড়ি নির্মাণ করেছে বাদল। পরে আদালতের নির্দেশে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে সে কাজ করতে পারে নাই।

কাদের মির্জা বলেন, আপনারা খবর নিয়ে দেখেন চরএলাহী থেকে মিরেরপোল পর্যন্ত বড় বড় কাজগুলো কে করে ? চরএলাহী, দিয়ারা বালুয়া, গুচ্ছগ্রাম হাজার হাজার একর জমি আজকে তাদের দখলে, ভূমিহীনদের জায়গাগুলো উদ্ধার করে ভূমিদস্যু বাদল থেকে তাদেরকে ফিরিয়ে দিতে হবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউনুস সহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ।

বক্তব্য রাখেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবু নাসের, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুবলীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট শাহিদুর রহমান তুহিন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সাহাজ উদ্দিন মামুন, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আরিফুর রহমান, বসুরহাট পৌরসভা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক রাজু খান, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হামিদুল্লাহ হামিদ, ছাত্রলীগ নেতা ইয়াসির আরাফাত ও খান শিহাবুর রহমান শিহাব সহ নেতৃবৃন্দ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
© All rights reserved © 2017 nktelevision
Design & Developed BY Shera Web