বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৩৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম

ছাত্রলীগের সম্মেলন ৩ ডিসেম্বর, লবিং-তদবিরে তৎপর পদপ্রত্যাশীরা

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন আগামী ২৪ ডিসেম্বর। এর আগে আগামী ৩ ডিসেম্বর দলটির ভাতৃপ্রতীম সংগঠন ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

শুক্রবার (৪ নভেম্বর) বিকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র এমন তথ্য জানা গেছে। এদিকে সম্মেলনের আভাস পেয়ে ইতোমধ্যে দলের হাইকমান্ডের কাছে তদবির করছেন ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশী নেতারা, চলছে জোর লবিং।

ছাত্রলীগ আওয়ামী লীগের ভাতৃপ্রতীম সংগঠন। সম্মেলনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিকভাবে নতুন নেতৃত্ব বাছাই করার কথা। কিন্তু আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে সংগঠনের সর্বোচ্চ অভিভাবক মনে করে ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের সম্মেলন হলেও তিনিই মূলত শীর্ষ নেতৃত্ব বাছাই করে থাকেন।

এজন্য ছাত্রলীগের শীর্ষ পদপ্রত্যাশীরা হাইকমান্ডের কাছে গিয়ে লবিংয়ে তৎপর রয়েছেন। যাতে তাদের নাম সভানেত্রীর কাছে উত্থাপন করেন হাইকমান্ডের নেতারা।

ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, এতদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন-কেন্দ্রিক রাজনৈতিক কার্যক্রম ছিল ছাত্রলীগ নেতাদের। এখন পদপ্রত্যাশীদের চলাফেরা দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ের দিকে বেশি দেখা যাচ্ছে।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে যাদের সাংগঠনিক সক্ষমতা ভালো, রয়েছে ক্লিন ইমেজ এবং যাদের পরিবারের সঙ্গে জামাত-বিএনপি’র কোনও সংশ্লিষ্টতা নেই, তারাই আগামীর নেতৃত্বে আসবে। এছাড়াও যারা শিক্ষার্থীদের কাছে জনপ্রিয় এবং মানবিক কাজে করে আলোচনায় আসতে পেরেছেন, এমন ছাত্রনেতারাও এগিয়ে থাকবেন।

বিগত কয়েক বছরে দেখা গেছে নির্দিষ্ট কয়েকটি অঞ্চল থেকে ছাত্রলীগের শীর্ষ নির্বাচন করা হয়েছে। এর মধ্যে বৃহত্তর ফরিদপুর, বরিশাল, চট্টগ্রাম, উত্তরবঙ্গ, খুলনা, ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগ। ছাত্রলীগ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এবার দেশের কয়েকটি অঞ্চলের ছাত্রলীগ নেতারা আলোচনায় রয়েছেন।

চট্টগ্রাম বিভাগ

কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-সমাজসেবা সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত, সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তাহসান আহমেদ রাসেল, সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দীন।

উত্তরবঙ্গ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক হায়দার মোহাম্মদ জিতু, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সহ সভাপতি রাকিবুল হাসান রাকিব, ক্রীড়া সম্পাদক আরেফিন সিদ্দিকী সুজন এবং ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ হল ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহিদ।

বরিশাল বিভাগ

এই বিভাগ থেকে আলোচনায় আছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ (ইনান), সহ-সভাপতি সৈয়দ আরিফ হোসেন, সহ-সভাপতি ইয়াজ আল রিয়াদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরিফুজ্জামান আল ইমরান, কর্মসংস্থান বিষয়ক উপসম্পাদক খাদিমুল বাশার জয়।

খুলনা বিভাগ

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক বরিকুল ইসলাম বাধন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নাহিদ হাসান শাহিন।

ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহ থেকে আলোচনায় আছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সোহান খান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান তাপস এবং সহসম্পাদক এসএম রাকিব সিরাজী।

ফরিদপুর

ঢাকার পার্শ্ববর্তী ছাত্রলীগের সাংগঠনিক বিভাগ ফরিদপুর থেকে আলোচনায় আছেন আইন বিষয়ক সম্পাদক ফুয়াদ হাসান শাহাদাত, উপআইন বিষয়ক সম্পাদক শাহেদ খান ও সহসভাপতি রাকিব হোসেন।

আওয়ামী লীগের সম্মেলনের আগেই ছাত্রলীগের সম্মেলন করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন ছাত্রলীগের দেখভাল করার দায়িত্ব থাকা ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সামনে জাতীয় নির্বাচন। এবার ছাত্রলীগের নেতৃত্বে নির্বাচনে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হবে। যাদের সাংগঠনিক দক্ষতা ভালো, কোনও বিতর্ক নেই, ভালো কাজ করে নিজেদের ইমেজ ক্লিন রেখেছেন এবং শিক্ষার্থীদের কাছে জনপ্রিয়, তাদের মধ্যে থেকেই নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে।’

পদপ্রত্যাশীদের ভাবনা

এই সম্মেলনকে ঘিরে উচ্ছ্বাস, উদ্দীপনা ও আনন্দ বিরাজ করছে পদপ্রত্যাশী এবং সাধারণ কর্মীসহ ছাত্রলীগের তৃণমূলে। পদপ্রত্যাশীদের প্রত্যাশা আগামী নেতৃত্বে আসবে রাজপথে পরীক্ষিত, ত্যাগী, যোগ্য, সাংগঠনিকভাবে পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ড ভালো, প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে সক্ষম, সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে লড়তে সক্ষম এবং সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে আপসহীন যোগ্য নেতৃত্ব।

পদপ্রত্যাশী ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সব সময়ই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার করার মত দক্ষ সংগঠন। সংগঠনে অসংখ্য ভালো নেতাকর্মী সব সময়ই ছিল। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ ও অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে যারা সব সময় প্রতিরোধ জারি রাখতে পারবে এবং শেখ হাসিনার গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রা এবং অর্থনৈতিক বিনির্মাণ এবং শেখ হাসিনার স্বপ্নের রাষ্ট্রের উপযোগী ছাত্র রাজনীতি যারা দিতে পারবে। তারাই আগামীতে আসবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।’

কেন্দ্রীয় উপ-সমাজ সেবা বিষয়ক সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত বলেন, ‘ছাত্রলীগ যে কোনও সময় দুর্দিনে মানুষের পাশে থেকেছে। শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতির পতাকাবাহী আমাদের সংগঠন। এই আদর্শকে যারা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে সামনে এবং ভবিষ্যতে যে ক্রাইসিসগুলো দেখা দিতে পারে- মৌলবাদীরা স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিরা দৈনিক মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। এই সময়টাতে যারা দক্ষ নেতৃত্ব দিয়ে সংগঠকের সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে। পাশাপাশি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে সাধারণ শিক্ষার্থীর বিভিন্ন দাবি দাওয়া পাবলিক এনগেজমেন্ট বেশি ও সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এ ধরনের ছাত্র নেতৃত্ব উঠে আসুক এমনটাই প্রত্যাশা।’

ছাত্রলীগ কর্মীদের ভাবনা

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে নতুন নেতৃত্বের গুণাবলি নিয়ে ভাবছেন কর্মীরাও। কর্মীদের প্রত্যাশা কর্মীবান্ধব ও সাংগঠনিকভাবে দক্ষ এবং অসাম্প্রদায়িক ইস্যুতে অনলাইন ও অফলাইনে পরীক্ষিত। একইসঙ্গে বয়সের দিক থেকে তরুণ নেতৃত্ব আসলে শিক্ষার্থীরা সহজেই নেতার সাথে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে পারবেন। আঞ্চলিকতা পরিহার করে যোগ্য ও ত্যাগীদের মূল্যায়নের প্রত্যাশা সাধারণ কর্মীদের।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগ কর্মী মো. মোসাহিদ আলী বলেন, নেতা হবেন কর্মীবান্ধব ও সাংগঠনিকভাবে দক্ষ এবং অসাম্প্রদায়িক ইস্যুতে অনলাইন ও অফলাইনে পরীক্ষিত। একইসঙ্গে বয়সের দিক থেকে তরুণ নেতৃত্ব আসলে শিক্ষার্থীরা সহজেই নেতাদের সঙ্গে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে পারবেন। যারা নিয়মিত মধুর ক্যান্টিন, টিএসসি ও ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউনিটে সফলভাবে কমিটিগুলো করতে পেরেছে, তারা প্রাধান্য পাবেন আশাকরি।

বিজয় একাত্তর হল ছাত্রলীগ কর্মী ওমর ফারুক শুভ বলেন, ছাত্রলীগ হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া বিপ্লবী বাংলার বিপ্লবী সংগঠন। এর কর্মীরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে এবং মনে লালন করে। সংঘাত, প্রতিহিংসা, স্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে সাধারণ মানুষের সঙ্গে এমনভাবে মিশতে হবে; যাতে করে মানুষের অধিকার আদায় এবং ভরসার শেষ সম্বল হয়ে ওঠে এই সংগঠন। ছাত্রলীগ একটি সংগঠিত সংগঠন, যেহেতু নতুন কমিটি আসছে প্রতিটা কর্মীর অনেক উচ্ছ্বাস, আশা-আকাঙ্ক্ষা তো থাকেই বরাবরের মতোই, তবে আঞ্চলিকতা পরিহার করে যোগ্য এবং ত্যাগীদের সুযোগ দিলে এবং তৃণমূলে ফোকাস করলে আরও বেশি সুসজ্জিত হবে সংগঠনটি।

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট:

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
© All rights reserved © 2017 nktelevision
Design & Developed BY Shera Web